মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

দিঘলী ইউনিয়নের ইতিহাস

বৃটিশ সরকারের শাসন আমল থেকে পাকিস্তান সরকারের শাসন আমল পর্যন্ত ১১ নং মান্দারী ইউনিয়ন নামে অত্র ইউনিয়ন পরিচিত ছিল। বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পরে ১১ নং মান্দারী ইউনিয়ন ৩ টি ইউনিয়নে বিভক্ত হয়। যাহা ১৪ নং দিঘলী ইউনিয়ন, ১৫ নং মান্দারী ইউনিয়ন ও ১৯ নং কুশাখালী ইউনিয়ন হিসেবে পরিচিত হয় । সর্বশেষ ২০০২ সালে ইংরেজি সালে ১৪ নং দিঘলী ইউনিয়ন হইতে ১৩ নং দিঘলী ইউনিয়ন নামে পরিচিত হযে আসিতেছে। বর্তমানে ১৩ নং দিঘলী ইউনিয়ন নামে চলমান অবস্থায় আছে । বৃটিশ সরকারের আগে জনপ্রতিনিধি কে প্রেসিডেন্ট বলা হতো। পরে তাহা সংশোধন করে ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান নাম করণ করা হয়। যাহা বর্তমানে চলমান অবস্থায় আছে। বর্তমানে একজন চেয়ারম্যান, ৯ জন পুরুষ সদস্য ও ৩জন মহিলা সদস্যা নিয়ে ইউনিয়ন পরিষদ গঠিত হয়। তাছাড়া ইউনিযন পরিষদে একজন সরকার কর্তৃক নিয়োগ প্রাপ্ত সচিব এবং ১০ জন গ্রাম পুলিশ কর্মরত আছে।


Share with :

Facebook Twitter